সাকিবকে দলে ভিড়াতে টানাটানি

১ বছরের নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তি পেয়েছে গতকাল। এখন তিনি খেলতে পারবেন সব ধরনের ম্যাচ। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের আপাতত নেই কোন আন্তর্জাতিক ম্যাচ।

যেই একটা সিরিজ ছিল শ্রীলংকার বিপক্ষে, সেটাও বাতিল করেছে বিসিবি কোয়ারেন্টাইনের কঠিন শর্তের জন্য। তাই প্লেয়ারদের খেলার মধ্যে রাখার জন্য কিছু দিন আগে আয়োজন করা হয়েছিল প্রেসিডেন্ট কাপ।যেখানে চ্যাম্পিয়ন হয় মাহমুদুল্লাহ একাদশ।

প্রেসিডেন্ট কাপ সফল ভাবে সম্পন্ন করার পর এখন বিসিবির লক্ষ্য আরেকটা টুর্নামেন্ট আয়োজন করবে, তবে এবার টিটুয়েন্টি।প্রেসিডেন্ট কাপে নিষেধাজ্ঞার জন্য না থাকলেও এবারের টিটুয়েন্টি কাপে খেলতে পারবেন সাকিব আল হাসান।

সব কিছু ঠিক থাকলে নভেম্বরের ১৫ তারিখের দিকে শুরু হবে এই টুর্নামেন্টটি এবং এটি দিয়েই মাঠে ফিরবে সাকিব।

আগেরবার টুর্নামেন্টে দল ঠিক করে দিয়েছিল বিসিবি। এখন এবারও তারা দেয় কিনা সেটা দেখার বিষয়। দিলেই কোন দলে যাবে সাকিব সেই প্রশ্ন সবার মনে, কারন সবাই চায় সাকিব কে চাওয়াই স্বাভাবিক ব্যাপার।

দীর্ঘদিন ধরে বিশ্বসেরা অল রাউন্ডার তিনি, তাকে পাওয়া মানেই দলে একজন বেশি প্লেয়ার নিয়ে খেলা। কে না চাইবে সাকিব কে? প্রেসিডেন্ট কাপের চেয়ে এই টুর্নামেন্ট কে ঘিরে আগ্রহ আছে সবার। তার পুরোটা কারনই সাকিব।

শুরুতে না হলেও এখন এই করোনাকালীন সময়েও সাকিবকে পেতে আগ্রহী হয়ে উঠেছে কিছু কর্পোরেট হাউজ। বিসিবির কাছেও কয়েকটি কর্পোরেট হাউজ এবং ব্যক্তিগতভাবে কেউ কেউ টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে টিম স্পন্সর হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

বলা বাহুল্য, সেটার বড় কারণ সাকিব আল হাসান।যত দূর জানা গেছে তা হলো, সব দলের স্পন্সর পেলে টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট প্লেয়ার্স ড্রাফটের মধ্যেও হতে পারে।

কারণ বেশিরভাগ স্পন্সরেরই লক্ষ্য সাকিব আল হাসান। একবছর পর মাঠে ফেরার অপেক্ষায় থাকা সাকিবকে রেখে দল গড়তে পারলে বাড়তি ‘মিডিয়া মাইলেজ’ মিলবে- সেদিকটাও মাথায় আছে আগ্রহীদের।