৬৬ বলে ৮৮ রান করে ফাইনাল হেরেও ম্যাচসেরার পুরস্কার আশরাফুলের

করোনা কাটিয়ে দেশে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট শুরু হয়েছে প্রেসিডেন্টস কাপ দিয়ে। তিন দলের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হওয়া এই টুর্নামেন্টে জায়গা হয়নি মোহাম্মদ আশরাফুলের।

প্রেসিডেন্টস কাপ শেষে বিসিবি আয়োজন করেছে বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপ টুর্নামেন্ট। এবার দল বেড়েছে দুইটি।টি-২০ ফরম্যাটের এই টুর্নামেন্টে প্লেয়ার্স ড্রাফটে ‘ডি’ ক্যাটাগরিতে নাম ছিল আশরাফুলের।

ক্যাটাগরি যাই হোক না কেন অভিজ্ঞতার দিক বিবেচনা করে পারফরম্যান্সের সুযোগও দিয়েছিল মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী। তবে সেই প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হয়েছেন একসময় জাতীয় দলের অধিনায়কত্ব করা আশরাফুল।

দীর্ঘ বিরতি দিয়ে ক্রিকেটে ফেরা অ্যাশ প্রথম পাঁচ ম্যাচে সুযোগ পেলেও রান করেছেন মাত্র ৫৭। যেখানে তার সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটি ছিল মাত্র ২৫ রানের।

এমন হতাশাজনক পারফম্যান্সের পর আর দলে সুযোগ হয়নি তার। রাজশাহী প্লে অফের আগেই টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিলে দল ছাড়েন আশরাফুলও।

এদিকে বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপ টুর্নামেন্ট শেষে আশরাফুল খেলেছেন মাগুরায় অনুষ্ঠিত একটি-২০ টুর্নামেন্টে। সেখানে ফাইনাল ম্যাচে ব্যাট হাতে আবারও চমক দেখিয়েছেন আশরাফুল।

৬৬ বল মোকাবেলায় ৮৮ রান করে দলকে জেতাতে না পারলেও ম্যাচ সেরার পুরস্কার ঠিকই পেয়েছেন তিনি।টুর্নামেন্টের ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল।

ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ও বরগুনা বয়েজ। শুক্রবার (১৮ নভেম্বর) প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ প্রথমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৬১ রান করে।

১৬২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে বরগুনা বয়েজ ১৮ ওভার ৩ বলে ৯ উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করে ১২৯ রান। ফলে ৩২ রানে ম্যাচ হারে বরগুনা বয়েজ।বরগুনা বয়েজের অধিনায়ক মাইনুল ইসলাম ৫ ম্যাচে ৮৯ রান ও ১৩ উইকেট নিয়ে টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ২ ডিসেম্বর বেশ জমকালোভাবে উদ্বোধন করা হয়েছিল এই টুর্নামেন্টের। সেমি ফাইনালের বাধা পেরিয়ে গত ১১ ডিসেম্বরই ফাইনালে পা রাখে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ও বরগুনা বয়েজ।