নাসিরের একটিই অনুরোধ তামিমাকে নিয়ে (ভিডিও)

খেলা ধূলা ডেস্ক।। ক্রিকেটার নাসিসের স্ত্রী তামিমা তার সাবেক স্বামী রাকিবকে ২০১৬ সালে তালাক দিয়েছেন বলে দাবি করেছেন তামিমা, নাসির ও তাদের আইনজীবী।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমের উদ্দেশ্যে বনানীতে এক ব্রিফিংয়ের আয়োজন করেন নাসির। সেখানে তিনিসহ স্ত্রী তামিমা ও আইনজীবী উপস্থিতি ছিলেন।

এ সময় নাসির বলেন, আমরা যা করেছি আইন ও ধর্ম মেনে করেছি। তামিমা ২০১৬ সালে রাকিবকে ডিভোর্স দেয়। এজন্য বিষয়টি নিয়ে অপ্রচার না করার অনুরোধ করেন তিনি।

নাসির বলেন, আমরা সবার কাছে একটিই অনুরোধ, প্রকৃত তথ্য না জেনে গণমাধ্যমে ও ফেসবুকে যেসব তথ্য প্রচার করা হচ্ছে তা সঠিক নয়। আজ তামিমার ক্ষেত্রে যা ঘটছে তা কাল আপনার ক্ষেত্রে ঘটতে পারে।

এজন্য অপপ্রচার না করার অনুরোধ করছি।এদিকে বুধবার নাসির হোসেন ও স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তাম্মির আগের স্বামী মো. রাকিব হাসান।

মামলায় আগের বিয়ে গোপন রেখে নতুন বিয়ে, অন্যের স্ত্রীকে প্রলুব্ধ করে নিয়ে যাওয়া, ব্যাভিচার ও মানহানির অভিযোগ আনা হয়েছে।

ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে রাকিব হাসান এ মামলা করেন।

রাকিবের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান বলেন, মামলায় তামিমা সুলতানা তাম্মিকে এক নম্বর ও ক্রিকেটার নাসির হোসেনকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে।

দণ্ডবিধি ১৮৬০ এর ৪৯৪, ৪৯৭, ৪৯৮, ৫০০ এবং ৩৪ ধারায় এ মামলা করা হয়েছে।মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি বাদীর সঙ্গে ১ নম্বর আসামি তামিমা সুলতানার ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক ৩,০০,০০১ (তিন লক্ষ এক) টাকা দেনমোহর ধার্যে বিবাহ সম্পন্ন হয় এবং রেজিস্ট্রি হয়।

বিয়ের পর থেকে বাদী ও ১ নম্বর আসামি স্বামী-স্ত্রী হিসেবে সংসার করতে থাকেন। দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে বাদীর ঔরসে ১নং আসামির গর্ভে একজন কন্যা সন্তানের জন্ম হয়,

যার নাম রাখা হয় তোবা হাসান, বয়স-৮ বছর। ১ নম্বর আসামি (তাম্মি) পেশায় একজন কেবিন ক্রু। তিনি সৌদি এয়ারলাইন্সে কর্মরত।

চাকরির সুবাদে তিনি গত ১০ মার্চ সৌদিতে গিয়েছিলেন। করোনা মহামারির কারণে জরুরি অবস্থা সৃষ্টি হলে সেখানেই অবস্থান করতে থাকেন।

(ভিডিও)