কলকাতার হার : শেষ পর্যন্ত সাকিবের ঘাঁড়েই যে কারণে দোষ চাপালো!

রাসেল-দিনেশ কার্তিকরা দলকে জেতাতে পারেননা সেটাও আবার বলের সমান রানে, তখন নিশ্চয়ই সেটা অবিশ্বাস্যই মনে হবে।

আর সেটাই ঘটেছে আইপিএলের পঞ্চম ম্যাচে। দীনেশ কার্তিক ১১ বলে ৮ রান স্ট্রাইক রেট ৭২ , টি টোয়েন্টি তো দূরে থাক এটা বর্তমান ওয়ান ডে স্ট্রাইক রেট ও না , অ্যান্ড্রু রাসেল তো আরো বিস্ময় দেখালেন ১৫ বলে ৯ স্ট্রাইক রেট ৬০।

সবাই যখন দায়ী চাপাচ্ছেন এই দুই জনের উপর, কিন্তু সাকিবের উপরেও দোষ চাপালেন অনেকেই। কলকাতা হারের জন্য সব চেয়ে বেশী দায়ী সাকিব আল হাসান।

নিশ্চিত জয়ের ম্যাচ কীভাবে হাতছাড়া করা যেতে পারে, কলকাতা নাইট রাইডার্স যেন সেই দৃষ্টান্তই স্থাপন করেছে। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) চতুর্দশ আসরে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে অবিশ্বাস্যভাবে ম্যাচ হেরেছে কলকাতা।

আর এতে সাকিব আল হাসানের দায় দেখছেন ভারতীয় ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে।জনপ্রিয় এই ক্রীড়া বিশ্লেষকের মতে, চেন্নাইয়ের যে ধরনের ধীর উইকেটে খেলা হয়েছে, সাকিব এমন উইকেটে খেলেই অভ্যস্ত।

তাই সাকিবেরই ব্যাট হাতে জয় নিশ্চিত করা উচিৎ ছিল। এছাড়া কথা বলেছেন আন্দ্রে রাসেলের প্রশ্নবিদ্ধ ধীর ব্যাটিং নিয়েও।হার্শা বলেন, “এরকম পিচে সাকিব ‘মাস্টার’।

এরকম পিচে খেলেই সে অভ্যস্ত। তার উচিৎ ছিল জয় নিশ্চিত করা। রাসেল এরকম ধীরগতির উইকেটে খেলতে পছন্দ করে না। কিন্তু সাকিব এরকম পিচে খেলেই বেড়ে উঠেছে।

তার উচিৎ ছিল ম্যাচ জিতিয়ে আসা।”মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) আসরের পঞ্চম ম্যাচে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে ১৫২ রান সংগ্রহ করে মুম্বাই।

সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দারুণভাবেই এগোচ্ছিল কলকাতার ইনিংস। তবে শেষদিকে গিয়ে খেই হারায় দলটি।প্রয়োজনীয় রান রেট একসময় ছয়েরও কম ছিল।

দুই ওপেনার বিদায় নিলে বাকি ব্যাটসম্যানরাও ব্যস্ত ছিলেন আসা-যাওয়ায়। পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিজে নেমে সাকিব ভালো কিছুরই ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন।

কিন্তু ৯ বলে ৯ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। ক্রুনাল পান্ডিয়াকে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে তালুবন্দী হন সূর্যকুমার যাদবের হাতে।

যদিও সে সময় আরেকটু দেখেশুনে খেলার সুযোগ ও সময় ছিল সাকিবের সামনে।সাকিবের বিদায়ের পর ক্যারিবীয় বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান আন্দ্রে রাসেল ও ভারতের অন্যতম সেরা ফিনিশার দীনেশ কার্তিক ধীরগতির ব্যাটিং উপহার দিয়ে দলকে জেতাতে ব্যর্থ হন।

রাসেল ১৫ বলে ৯ ও কার্তিক ১১ বলে অপরাজিত ৮ রান করেন। এই পরাজয়ে কলকাতা নাইট রাইডার্সের সমর্থকদের মধ্যে অসন্তোষ জেগেছে।