প;রকী;য়া ‘প্রেমিকাসহ’ স্বামীকে ন;গ্ন করে গ্রাম ঘোরালেন স্ত্রী

কথিত পরকীয়া প্রেমিকার সঙ্গে স্বামীকে হাতেনাতে ধরার পর তাদের দুজনকে নগ্ন করে গ্রাম ঘুরিয়েছেন স্ত্রী। এর জেরে ওই নারীসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সম্প্রতি ভারতের ছত্তিশগড়ের কোন্ডাগাঁও জেলায় ঘটেছে এই ঘটনা। খবর এনডিটিভির।গত মঙ্গলবার (১৩ জুন) স্থানীয় এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গত ১১ জুন উরিন্দবেদা থানাধীন একটি গ্রামে ঘটা ওই ঘটনায় জড়িত ব্যক্তির স্ত্রীসহ চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পুলিশের একটি টিম তদন্তে যাওয়ার পরে এ ঘটনা প্রকাশ্যে আসে।জানা যায়, অভিযুক্ত ব্যক্তির স্ত্রী তার স্বামীকে অন্য এক নারীর সঙ্গে দেখে আত্মীয়-স্বজনদের ডাক দেন। পরে সবাই মিলে কথিত পরকীয়া প্রেমিকাসহ ওই ব্যক্তিকে নগ্ন করে গ্রামের মধ্য দিয়ে হাঁটান।এরপর ভুক্তভোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে উরিন্দবেদা থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। এতে নারীর শ্লীলতাহানিসহ সম্পর্কিত বিভিন্ন ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।এ ঘটনায় আরও তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আরও পড়ুনঃআমাদের দেশের অনেক শিক্ষার্থী ভাল ফলাফল করার পরও ভাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পান না। কারণ আমাদের দেশের শিক্ষার্থীর তুলনায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আসন সংখ্যা অনেক কম। শিক্ষার্থীদের ভর্তির কথা মাথায় রেখে আমাদের দেশের শিক্ষার মান উন্নত করার লক্ষ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাজধানীর সাতটি কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত করা হয়েছে।

এর ফলে আমাদের দেশের অনেক শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মানের শিক্ষা পাচ্ছেন বলে দাবি কর্তৃপক্ষের।অধিভুক্তির পরপরই সাত কলেজকে নিয়ে জটিতায় পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সেশনজট, ফল বিপর্যয়, ফলাফল জটিলতা, ঠিকমত পরীক্ষা না হওয়াসহ নানা ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হয় শিক্ষার্থীরা। শুরুতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সমন্বয়হীনতার অভাবে ফলাফল জটিলতায় পরে শিক্ষার্থীরা।

২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় পয়েন্ট-এর ভিত্তিতে ভর্তি করালেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে ভর্তি করায়। সম্প্রতি ১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের চতুর্থ বর্ষের ফরম ফিলাপ চলাকালীন আগেই মাস্টার্স এর তারিখ প্রকাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। সেনশ জট কমিয়ে আনায় এবার সাত কলেজের প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ আরও বেড়েছে। করোনার কারণে সেশনজট এড়াতে ৮ মাস এ বছর হিসেব করবে ঢাবি। যার ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সাত কলেজ নিয়ে যে নেতিবাচক ধারণা ছিল তা দূর হয়ে গেছে এবং এতে করে সাত কলেজকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে শিক্ষার্থীরা।

মহাখালী তিতুমীর কলেজ সংলগ্ন একটি কম্পিউটার অপারেটর দোকানে গিয়ে জানা গেছে, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন করছেন শিক্ষার্থীরা। সাত কলেজে ভর্তির বিষয়ে শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বেশি। শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিবাবকরা জিজ্ঞেস করছেন, কখন সাত কলেজে ভর্তির নোটিশ প্রকাশ করা হবে, ভর্তি হতে কত খরচ হবে, কোন কলেজটি ভালো হবে?