নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে হেঁটে সেতু পার, তুলছেন সেলফিও (ভিডিও)

স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে অনেকেই হেঁটে সেতু পার হয়েছেন। আবার কেউ কেউ সেতুর ওপর দাঁড়িয়ে সেলফিও তুলেছেন।

শনিবার (২৫ জুন) দুপুরে পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তে এমন দৃশ্য দেখা গেছে।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেতু উদ্বোধনের পরপরই বেষ্টনী টপকে সেতুতে উঠে যায় উৎসুক জনতা। এ সময় মানুষদের দলে দলে হেঁটে সেতুতে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে। কেউ আবার স্মৃতি হিসেবে নিজেকে ক্যামেরাবন্দি করছেন। হেঁটেও সেতু পার হয়েছেন অনেকেই

এর আগে সেতু কর্তৃপক্ষ এক নির্দেশানায় বলেছিল, সেতুর ওপর যেকোনো ধরনের যানবাহন দাঁড়ানো ও যানবাহন থেকে নেমে সেতুর ওপরে দাঁড়িয়ে ছবি তোলা বা হাঁটা যাবে না। তিন চাকা বিশিষ্ট যানবাহন, পায়ে হেঁটে, সাইকেল বা নন-মটোরাইজড গাড়ি যোগে সেতু পারাপার হওয়া যাবে না এবং সেতুর ওপরে কোনো ধরনের ময়লা ফেলা যাবে না।

এদিকে পদ্মার মাওয়া প্রান্তে শনিবার সকাল ১০টায় পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার সফরসঙ্গীরা। সেতুর মাওয়া প্রান্তে টোল পরিশোধ শেষে উদ্বোধনী ফলক ও ম্যুরাল-১ উন্মোচনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন। উদ্বোধন শেষে জাজিরা প্রান্তে পৌঁছে সেতু ও ম্যুরাল-২-এর উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন করেন। এরপর জনসভায় যোগদান দেন তিনি। সেখান থেকে তিনি হেলিকপ্টারে ঢাকায় ফিরে আসবেন।

তথ্যমতে, বাংলাদেশের বুকে সবচেয়ে বড় অবকাঠামোর নাম পদ্মা সেতু। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটারের সেতুটি ঢাকা বিভাগের দুই জেলা মুন্সীগঞ্জ আর শরীয়তপুরকে সংযুক্ত করেছে। সেতুর ডাঙার অংশ যোগ করলে মোট দৈর্ঘ্য ৯ কিলোমিটার। স্টিল আর কংক্রিটের তৈরি দ্বিতল সেতুর ওপরের স্তরে রয়েছে চার লেনের সড়ক আর নিচে একক রেলপথ।

বিশ্বের খরস্রোতা নদীর তালিকায় আমাজনের পরেই পদ্মার অবস্থান। এমন খরস্রোতা নদীর ওপর বিশ্বে সেতু হয়েছে মাত্র একটি। তাই সেতুকে টেকসই করতে নির্মাণের সময়
বিশেষ প্রযুক্তির পাশাপাশি উচ্চমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হয়। পদ্মা সেতুর পিলার সংখ্যা ৪২ আর স্প্যান ৪১টি। খুটির নিচে সর্বোচ্চ ১২২ মিটার গভীরে স্টিলের পাইল বসানো হয়। অর্থাৎ প্রায় ৪০তলা ভবনের উচ্চতার গভীরে পাইল নিয়ে যেতে হয়। বিশ্বে এখন পর্যন্ত কোনো সেতুর জন্য এত গভীর পাইলিং হয়নি।

পদ্মা সেতুতে রয়েছে অত্যধুনিক সিসি ক্যামেরা। সাধারণ আলোক সুবিধার পাশাপাশি সেতুতে রয়েছে আলোকসজ্জা ও সৌন্দর্য বর্ধনে রয়েছে আর্কিটেকচার লাইটিং। স্বাভাবিক সময়ে নদীর পানি থেকে সেতুর উচ্চতা প্রায় সাত ফুট। এর নিচ দিয়ে পাঁচ তলা উচ্চাতার নৌযান চলাচল করতে পারবে। ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা বহুমুখী সেতু রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য বড় শহরের সঙ্গে দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার সড়ক ও রেল যোগাযোগ স্থাপন করবে।

পদ্মা সেতু দক্ষিণ এবং পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার উন্নয়নের সঙ্গে দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

https://video.fdac15-1.fna.fbcdn.net/v/t42.1790-2/290277404_135236542473448_1662536935527827330_n.mp4?_nc_cat=111&ccb=1-7&_nc_sid=985c63&efg=eyJybHIiOjQ3MSwicmxhIjo5MzMsInZlbmNvZGVfdGFnIjoic3ZlX3NkIn0%3D&_nc_ohc=Ya2tH1C8P0EAX9-toZg&tn=CHK2Yhc1M92dNUVE&rl=471&vabr=262&_nc_ht=video.fdac15-1.fna&edm=AGo2L-IEAAAA&oh=00_AT_EbrgDZiESeNj0yEMEyolSYTpJxXn7Qe_NTU41RtlbYg&oe=62B6FC85