সাকিবকে বল না দেওয়ার প্রশ্নে যা বললেন লিটন দাস

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে বিধ্বস্ত হওয়ার পর টি-টোয়েন্টিতেও সিরিজ খুইয়েছে টাইগাররা। এখন পর্যন্ত সফরের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় ব্যাটিং ব্যর্থতা।

তবে কুড়ি ওভারের ফরম্যাটের শেষ ম্যাচের পর কাঠগড়ায় অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বও। তার ‘মুখস্থ’ অধিনায়কত্ব নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে জোর আলোচনা।

গায়ানার মন্থর উইকেটে ১৬৪ রানের লক্ষ্য দিয়েও জিততে পারেনি বাংলাদেশ দল। ১০ বল হাতে রেখেই ৫ উইকেটে জিতে নেয় উইন্ডিজ।

অথচ এর আগে এই মাঠে ১৫০ রানের বেশি টার্গেট তাড়া করে জয়ের রেকর্ড ছিল না। সমর্থকরা মনে করছেন, ভুলভাল বোলিং অ্যাটাকের জন্য হারতে হয়েছে ম্যাচ।

যেমন ইনিংসের সপ্তম ওভারে বোলিংয়ে এসে নিজের প্রথম বলেই উইকেট পান সাকিব আল হাসান। সে ওভারে মাত্র ৪ রান দেন তিনি।

অথচ ম্যাচ হাত থেকে বের হয়ে গেলেও তাকে ১৬ ওভার অবধি আর বোলিংয়ে আনেননি মাহমুদউল্লাহ।কারণ ক্রিজে দুই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান কাইল মায়ার্স আর নিকোলাস পুরান।

বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের সামনে যেন বাঁহাতি বোলার আনা রীতিমত অন্যায়! অথচ অফ স্পিনার মোসাদ্দেক তখন সমানে রান বিলিয়েছেন। ৪ ওভারে দেন ৩৪ রান।

ম্যাচ হারের পর দলের ওপেনার লিটস দাস জানান, পুরোটাই অধিনায়কের ব্যাপার। তবে সাকিবকে বল না দেওয়ার যে সিদ্ধান্ত, সেটি পক্ষে এলে মাহমুদউল্লাহর প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন উঠতো না।

লিটন বলছিলেন, ‘দুই দিক দিয়েই করানো যায়। ডানহাতি ব্যাটসম্যানের সময় ডানহাতি বোলার বল করে, সমস্যা নাই। কিন্তু সিদ্ধান্তটা সম্পূর্ণ অধিনায়কের।

যদি সিদ্ধান্তটা ভালোর দিকে যেত, তাহলে হয়তোবা এই প্রশ্নটা আসতো না। মাঠ তো আমি চালাব না বা আর দশটা ক্রিকেটার চালাবে না। আশা করা উচিত অধিনায়কের যে সিদ্ধান্ত সেটা ফলো করা।’