বাংলাদেশ দলকে অসম্মান না করার আহ্বান ডেভ হটনের

জিম্বাবুয়েতে টি-টোয়েন্টি দল তো বটেই, ওয়ানডে দলও সিরিজ জিততে পারেনি। দুই সিরিজেই পরাজয় বরণ করতে হয়েছে ২-১ ব্যবধানে।

এমন পারফরম্যান্সের পরও বাংলাদেশ দলকে যথেষ্ট সম্মান করছেন জিম্বাবুয়ের প্রধান কোচ ডেভ হটন।কোনো টেস্ট খেলুড়ে দলই এখন জিম্বাবুয়েকে শক্ত প্রতিপক্ষ মনে করে না।

জিম্বাবুয়ে সফরে যাওয়ার আগে বাংলাদেশ দলও অনেকটা নির্ভার ছিল। তবে সেখানে গিয়ে বদলে গেছে ধারণা। টাইগাররা টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে দুই ফরম্যাটেই সিরিজ হেরেছে জিম্বাবুয়ের কাছে।

টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ দলের নাজুক ধরা বিগত কয়েক মাস ধরে। তবে ওয়ানডেতে তামিম ইকবালের নেতৃত্বাধীন দল পেয়েছে বড় কিছু সাফল্য।

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে সিরিজ জয় কিংবা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে তাদের মাটিতে হোয়াইটওয়াশ করা শক্তিশালী বাংলাদেশ দলের স্বীকৃতি দিয়েছে।

তবে জিম্বাবুয়েতে টি-টোয়েন্টি দল তো বটেই, ওয়ানডে দলও সিরিজ জিততে পারেনি। দুই সিরিজেই পরাজয় বরণ করতে হয়েছে ২-১ ব্যবধানে।

এমন পারফরম্যান্সের পরও বাংলাদেশ দলকে যথেষ্ট সম্মান করছেন জিম্বাবুয়ের প্রধান কোচ ডেভ হটন। জিম্বাবুয়ে সফরের ব্যর্থতার কারণে বাংলাদেশকে কেউ যেন অসম্মান না করেন,

সেই আহ্বান জানিয়েছেন এই জিম্বাবুইয়ান।হটন মনে করেন, বাংলাদেশের বিপক্ষে জিম্বাবুয়ের সাফল্যের মন্ত্র ছিল আগ্রাসী ক্রিকেট।

তবে এই বিষয়টি কি চমক ছিল নাকি জিম্বাবুয়ে আসলেই ভালো দল হয়ে উঠেছে, তা তিনি যাচাই করতে চান ভারতের বিপক্ষে সিরিজে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হটন বলেন, ‘আমরা যেন বাংলাদেশ দলকে অসম্মান না করি। কারণ তারা অনেক ভালো একটা দল, বিশেষ করে সাদা বলের ক্রিকেটে।

আমরা আগ্রাসী ক্রিকেট খেলেছি। এই আগ্রাসী ক্রিকেট আমরা বেশ উপভোগ করছি। এটাই আমাদের সাম্প্রতিক সাফল্যগুলো এনে দিয়েছে।

ভারতের বিপক্ষে নিজেদের শক্তিমত্তা যাচাইয়ের ভালো একটা সুযোগ আছে। এই সিরিজই বলে দেবে, আমরা কি উন্নতি করছি নাকি এটা একটা চমক ছিল।’প্রসঙ্গত, আগামী ১৮, ২০ ও ২২ আগস্ট ভারতের বিপক্ষে তিনটি ওয়ানডে খেলবে জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের বিপক্ষে ঐতিহাসিক দুই সিরিজ জয় পাওয়া ভেন্যু হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠেই অনুষ্ঠিত হবে ভারত সিরিজের ম্যাচগুলো।