এশিয়া কাপের বাংলাদেশ দলের চূড়ান্ত স্কোয়াড দেখেনিন

আসন্ন এশিয়া কাপের জন্য মাত্র দুইজন স্বীকৃত ওপেনার নিয়ে স্কোয়াড ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ। তবে এবার তৃতীয় স্বীকৃত ওপেনার হিসেবে এশিয়া কাপের স্কোয়াডে জায়গা করে নিলেন নাঈম শেখ।

এদিকে পেসার হাসান মাহমুদ চোটে পড়ায় ভাগ্য খুলেছে মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরিরও। স্কোয়াডে সুযোগ পেয়েছেন এই বাঁহাতি পেসার।

মূলত, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ‘এ’ দলের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে শতক হাঁকিয়ে এশিয়া কাপের দলে জায়গা করে নিলেন এই বাঁহাতি ওপেনার।

একইসঙ্গে স্ট্যান্ডবাই থেকে স্কোয়াডে আসলেন মৃত্যুঞ্জয়। যার ফলে বাংলাদেশের স্কোয়াডে ক্রিকেটার সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ১৮-তে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিসিবির এক কর্মকর্তা এশিয়া কাপের স্কোয়াডে নাঈমের অন্তর্ভূক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন।উইন্ডিজ ‘এ’ দলের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে অবশ্য এশিয়া কাপের জন্য বিবেচনায় ছিলেন না নাঈম।

বরং সৌম্য সরকারকে ঝালিয়ে দেখার পরিকল্পনা ছিল বিসিবির। একইসঙ্গে এশিয়া কাপের স্কোয়াডে সুযোগ পাওয়া সাব্বির রহমানকেও ম্যাচ ফিটনেস পাওয়ার সুযোগ করে দেওয়ার লক্ষ্য ছিল বিসিবির।

সৌম্য সুযোগ কাজে লাগাতে না পারলেও নাঈম ঠিকই নিজের কাজ করে দেখিয়েছেন। সিরিজের প্রথম ম্যাচে শূন্য রানে আউট হয়ে ফিরলেও দ্বিতীয় ম্যাচে শতক হাঁকিয়ে বসেন নাঈম।

এই ওপেনারের ১১৬ বলে ১০৩ রানের ইনিংসে বাউন্ডারি থেকেই আসে ৬২ রান। যেখানে ১৪ চারের পাশাপাশি ১টি ছয়ের মারও রয়েছে নাঈমের।

যদিও শেষ ম্যাচে অবশ্য আবারও সিঙেল ডিজিট ৩ রানে আউট হয়ে ফেরেন নাঈম।টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ বিবেচনায় ব্যাট হাতে বেশ ধারাবাহিক ব্যাটসম্যানই ছিলেন নাঈম।

কিন্তু আধুনিক ক্রিকেটসুলভ স্ট্রাইক রেট মেন্টেন করতে না পারায় দল থেকে ছিটকে যান এই ব্যাটসম্যান। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের জার্সিতে ৩৪ টি-টোয়েন্টিতে রান আছে ৮০৯।

২৪ গড় থাকলেও স্ট্রাইক রেট মোটেও টি-টোয়েন্টি সুলভ নয়। মাত্র ১০৩.৭১।এশিয়া কাপের জন্য ১৮ জনের স্কোয়াড: সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), এনামুল হক বিজয়, নাঈম শেখ, মুশফিকুর রহিম, আফিফ হোসেন, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, শেখ মাহাদি, সাইফুদ্দিন, মোস্তাফিজুর রহমান, নাসুম আহমেদ, সাব্বির রহমান, মেহেদি মিরাজ, এবাদত হোসেন, পারভেজ ইমন, নুরুল হাসান সোহান, তাসকিন আহমেদ, মৃত্যুঞ্জয়।