স্ত্রীর উপর রাগ করে একমাস তালগাছের চূড়ায় বসবাস স্বামীর

স্ত্রীর প্রায় মারধর করতেন, সংসারে অশান্তি লেগেই থাকতো এসব কারণেই ভারতের উত্তর প্রদেশের মৌ জেলার বাসিন্দা রাম প্রবেশ নামের এক ব্যাক্তি একটি পাম গাছের চূড়ায় বসবাস করছেন।

সংসারে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিবাদ হওয়াটা স্বাভাবিক হলেও ওই ব্যাক্তি প্রতিদিনের এমন নির্যাতন মেনে নিতে না পেরেই প্রায় এক মাস যাবত গাছেই বসবাস করছেন।

গাছটির উচ্চতা প্রায় ১০০ ফিট।রাম প্রবেশের এমন কান্ডে পাগল প্রায় নেটিজেনরা। অনেকেই বলেছেন ঝগড়া-বিবাদ যে খারাপ দিকে মোড় নিতে পারে এটিই তার একটা প্রমান।

এ ঘটনায় রাম প্রবেশের বাবা ভিনসুরাম জানিয়েছেন, প্রতিনিয়ত স্ত্রীর সাথে ঝগড়া লেগেই থাকতো তাই ছেলে রাগে ক্ষোভে দীর্ঘ এক মাস পামগাছে বসবাস করছেন।

ভিনসুরাম আরও জানান, প্রায় প্রতিদিন স্ত্রী তাকে মারধর করতেন। ক্রমাগত লড়াইয়ে ক্লান্ত হয়ে রাম তাল গাছে বাস করার সিদ্ধান্ত নেন।

স্ত্রীর সঙ্গে অনবরত ঝগড়ার জেরে ছেলে প্রবেশ প্রায় গাছে বাড়ি বানিয়ে ফেলেছে।তবে এ ঘটনায় গ্রামবাসীরা অভিযোগ করে বলেছেন, রামের গাছে বসবাস তাদের গোপনীয়তার আক্রমণ।

যেহেতু গাছটি প্রায় ১০০ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত এবং এর পাশেই একটি পুল রয়েছে, তাই মহিলাদের পাশাপাশি গ্রামবাসীদের দৈনন্দিন কাজকর্ম ব্যাহত হয়।

তারা অভিযোগ করেছেন যে তাদের বাড়ির আঙিনাগুলি সমস্তই রামের কাছে দৃশ্যমান, গোপনীয়তার অভাবকে নির্দেশ করে। গ্রামবাসীরা আরও দাবি করেছেন যে তারা রামকে গাছ থেকে নামানোর চেষ্টা করলে সে তাদের দিকে ইট ছুড়ে মারে।

এলাকাবাসী আরও অভিযোগ করেন রাম গভীর রাতে গাছে উঠেন এবং তার দৈনন্দিন কাজকর্ম শেষ করে ফিরে আসেন। স্থানীয় পুলিশকে এই অস্বাভাবিক ঘটনার কথা জানানো হয়েছে।

তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতির একটি ভিডিও রেকর্ড করে, শীঘ্রই কিছু ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানায়। এ ঘটনায় দীপক নামে বারসাথপুরের গ্রামপ্রধান নিশ্চিত করেছেন যে রাম এবং তার বাবার মধ্যে চলমান বিবাদ ছিল যার কারণে প্রাক্তনটি একটি বাড়ি তৈরি করেছে।