একনজরে দেখেনিন আগামীকাল কেমন হচ্ছে বাংলাদেশের সেরা ১১ সদস্যের একাদশ

সময়টা যখন খারাপ যাচ্ছে তখন বিপদের বন্ধু হয়ে সাকিবই একমাত্র আস্থার জায়গা টাইগারদের একাদশ।সেজণ্য ই তো টূর্নামেন্টের আগেই অনেকটা তরিঘড়ী করেই তার কাধেই দেয়া হয়েছে টাইগারদের দায়িত্ব।

দেশের যখনই অবস্থা খারাপ হয় , তখনই তাকে খুজা হয়। সাকিবের কথায় তেমনটাই শোনা যায়।তিনি বলেন,বোর্ড আমাকে চাপে রাখতে পছন্দ করে।

কিন্তু আমি সেই চাপটা খুব ইঞ্জয় করি।সবশেষ টি২০ এর ১৫ ম্যাচের মাত্র ২টি জয়। এমন নরবড়ে পরিসংখ্যান ভোগাচ্ছে সাকিবদের।

তবে সবকিছূ ছাপিয়ে মেহেদি মিরাজের কথায় উঠে এসেছে আত্মবিশ্বাসের ছাপ। তিনি বলেন, দলের সবাই এখন তাদের দুর্বলতাগুলো কাটিয়ে উঠেছে।

সবাই যে যার জায়গা থেকে নিজের সর্বোচ্চটা বিলিয়ে দেয়ার জন্য প্রস্তুত সবাই।’এদিকে আগামিকাল কোন সেরা একাদশ নিয়ে মাঠে নামবে সেটা এখনো প্রকাশ না পেলেও কিছুটা অনুমান করা যাচ্ছে কারা কারা থাকছে দলে ।

ওপেনিংটাই যে দলকে বেশ ভোগাবে সেটা নিয়ে এখনো চলছে কানাঘুষা। তামীমের শুণ্যস্থান পুরন হবার নয়। একি সাথে ফর্মে থাকা লিটনকেও মিস করছে টাইগাররা।

সে জায়গায় তরুন এনামুল হকের সাথে অনভিজ্ঞ নাইম শেখকে দেখা যেতে পারে।তবে গুঞ্জন উঠছে মুশফিককে দিয়ে শুরুটা করা যায় কিনা

সে ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত নয়।সাকিবের জায়গাটা সাকিবের জন্য নির্ধারিত এ ব্যাপারে দিমত নেই। এই জায়গায় থেকেই জুটি বেধে দলকে সুবিধাজনক অবস্থানে থেকেই নিয়ে গেছেন বারবার।

মিডল অর্ডারটা শুরু হতে পারে দলে থাকা অভিজ্ঞ মুশফিক এবং বিপদের ত্রাতা মোহাম্মূদউল্লাহ কে দিয়ে। এই জায়গাটা পরিবর্তন হতে পারে আফিফের সাথে।

দুর্দান্ত ফর্মে থাকা আফিফ যে এবার মুখিয়ে আছেন দলকে ভালো অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার। সহ অধীনায়ক হয়েও যে দলকে আগলে রাখবেন তার পারপর্মেন্সেই সেটার প্রমান মেলে।

এরপর মোসাদ্দেককে নিয়ে দারুন কিছুর স্বপ্ন দেখছেন দর্শকরা।দলের বিপদে কতটূকূ মেলে ধরতে পারবেন সেটাই এখন দেখার বিষয়।এদিকে মেহেদি মিরাজ তো আছেন দলের জন্য সর্বস্ব বিলিয়ে দেয়ার।

বহুদিন পর দলে ফেরা সাইফুদ্দিনকে দায়িত্ব নিতে হবে বোলিং ব্যাটিং দুটোরই। আফগান ব্যাটিং লাইনে কতটুকু ত্রাস সৃষ্টী করতে পারবে সেটাই দেখা যাবে টাইগার বোলাদের দেখে।নাসুম আহমেদ ,মোস্তাফিজ এবং তাসকিনরা কতটূকু দায়িত্ব নিতে পারবেন সেটাই দেখা যাবে আগামিকাল দুবাইয়ের শারজার মাঠে। তবে অনেকদিন পর দলে ফেরা সাব্বিরকে দলে দেখা গেলেও অবাক হওয়ার কিছু নাই। কারণ ফিনিশার হিসেবে চিন্তা করেই যেন তাকে রাখা হয়েছে স্কোয়াডে।