কারাগারের সাফল্যের মাঝেই আরও একটি বড় সুখবর পেলেন চঞ্চল চৌধুরী

চঞ্চল চৌধুরীতে মুগ্ধ ওপার বাংলার সঙ্গে এপার বাংলাও। কাঁটাতারের বেড়া পেরিয়ে এবার আরবসাগরের তীরেও পৌঁছে গেল চঞ্চল ম্যাজিক।

বাংলাদেশি এই শিল্পীর প্রশংসা ডিরেক্টর সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের গলায়। এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় চঞ্চল প্রশংসায় লম্বা পোস্টে ডিজনি-হটস্টার

স্টিমিং প্ল্যাটফর্মের চিফ অপারেশন অফিসার হুজেফা কাপাডিয়া দিলেন এক্সক্লুসিভ খবর অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ টলি থেকে বলি।

কাঁটাতারের সীমানা পেরিয়ে এপারেও ক্রমশই বাড়ছে এমন শক্তিশালী বলিষ্ঠ অভিনেতার অনুরাগীর সংখ্যা। বঙ্গোপসাগর পার করে আরবসাগরের তীরেও এবার চঞ্চল কুমারের জয়জয়কার।

সূত্রের খবর, শীঘ্রই একটি বলিউড ক্লাসিক ব্লকবাস্টার মুন্নাভাই এমবিবিএস সিকুয়েলে দেখা যেতে পারে এই বাংলাদেশি অভিনেতাকে।ডিজনি-হটস্টার স্টিমিং প্ল্যাটফর্মের চিফ অপারেশন অফিসার হুজেফা কাপাডিয়া জানিয়েছেন, ”চঞ্চলের জন্য বড় কিছু ভাবা হচ্ছে।

মনমুগ্ধকর অভিব্যক্তি, বিরল অভিনয় দক্ষতাসম্পন্ন একজন অভিনেতা।” কাপাডিয়ার টুইটেই ইঙ্গিত মিলেছে, সম্ভবত রাজু হিরানির এই ব্লকবাস্টারের পরবর্তী সিকুয়েলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় থাকবেন চঞ্চল।

এখানেই শেষ নয়, চঞ্চল চৌধুরীর অভিনয়গুণে প্রশংসায় পঞ্চমুখ কাপাডিয়া লিখেছেন, ”ভাই তুমি একজন সত্যিকারের শিল্পী। ভগবান প্রদত্ত অভিনয় গুণ রয়েছে তোমার।

তোমার অভিনয়, অভিব্যক্তি দিয়ে যে কাউকে মোহিত করে দিতে পার। তোমাকে আমার স্যালুট। সবে তোমার সিরিজটা দেখা শেষ করলাম। দ্বিতীয় পার্ট দেখার জন্য আর ধৈর্য ধরছে না।

তোমাকে তাড়াতাড়ি আমাদের কাস্টিং টেবিলে দেখতে চাই। চল কিছু প্ল্যান করা যাক।”এর পরই টুইটে কাপাডিয়া লিখেছেন, ”চঞ্চল তোমাকে মামু, মুন্না ভাই খুঁজছে। বুদ্ধিমানদের জন্য ইশারাই অনেক। বাংলাদেশের সুপারস্টার তোমাকে অনেক ভালোবাসা।” এতেই নেটপাড়া জল্পনায় উত্তাল।

সম্প্রতি ‘হইচই’-এ স্ট্রিমিং চলছে হচ্ছে চঞ্চল চৌধুরীর সিরিজ কারাগার। কয়েদির ভূমিকায় সেখানে অভিনয় করেছেন এই শিল্পী। তাঁর অভিনয়ে মন্ত্রমুগ্ধ দর্শকেরা।

রবিবারই সোশ্যাল মিডিয়ায় চঞ্চলের প্রশংসায় পোস্ট করেন ডিরেক্টর সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের। লেখেন, তিনি বলেছেন, “চঞ্চল চৌধুরী ভবিষ্যত প্রজন্মের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া উচিত।”

আর সেই পোস্ট দেখে আপ্লুত অভিনেতা। পোস্টে মন্তব্য করেন, “এত বড় মূল্যায়ন!!!! কৃতজ্ঞ, ভালোবাসা নিও দাদা।”এখানেই শেষ নয় দুই বাংলার দুই শিল্পীর কথোপকথন। এরপর সেই কমেন্টের নীচে সৃজিত মুখোপাধ্যায় ফের লেখেন, “আপনার মতো শিল্পীর মূল্যায়ন করার দৃষ্টতা আমার নেই। শুধু সাধারণ দর্শক হিসেবে মনে হল। আপনি আমাদের গোটা উপমহাদেশের গর্ব।”