আমার মেয়েকে যতগুলো ছেলে দেখবে, তার থেকে বেশি আমায় দেখবে: শ্রীলেখা

মঙ্গলবার ৫০-এ পা দিলেন ওপার বাংলার আলোচিত অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। এদিন রাত ১২ টা বাজতেই নেচে-গেয়ে, অশালীন মন্তব্য নিজের জন্মদিন উদযাপন করলেন তিনি।

শ্রীলেখার বেহালার অ্যাপার্টমেন্টে ‘পুষ্পা’ সিনেমার ‘ও আন্তাভা’ গানের তালে কোমর দোলান। তবে তিনি একা নন। এ সময় একদল ঝকঝকে ছেলেমেয়ে এসেছিলেন জন্মদিন পালনে।

তারা প্রত্যেকেই শ্রীলেখার আপনজন ও বন্ধু। প্রথমে আড্ডা, নাচ, টাকিলা শটস। তারপর কেক কেটে সকলকে খাইয়ে দেওয়া।কেক কাটার পর শ্রীলেখা নিজের বয়স নিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন।

৫০ বছরে পা দিয়ে তিনি এক্কেবারেই বুড়িয়ে যাননি জানিয়েছেন। কোমরে ব্যথা আছে তার ঠিকই, কিন্তু তাতে তিনি পাত্তা দেন না একবিন্দুও।

বরং মনে করেন বয়সটা কেবলই একটা নম্বর মাত্র। বয়স লুকিয়ে রাখতে ভালবাসেন না।জোর গলায় বললেন, ‘আমার সত্যিকারের বয়স- আমার জন্ম ১৯৭২-এর ৩০শে অগস্ট… আমি পঞ্চাশে পা দিলাম।

এজ শেমিং করতে চাও করো, আমার ড্যাশ ছেঁড়া গেছে।এখানেই থেমে থাকেননি শ্রীলেখা। তিনি ইউটিউব লাইভে এরপর যোগ করেন, ‘আমার বাবা-মা তোমারদের বাবা-মা’র আগে বিয়ে করেছে, তারা আগে মিলন করেছে তার ফলপ্রসূ আমি জন্মেছি।

তাই বয়স নিয়ে আমার কোনও চাপ নেই’।এদিন মেয়ের সঙ্গেও নিজের তুলনা টেনে শ্রীলেখা বলেন, ‘আমার মেয়েকে যতগুলো ছেলে দেখবে তার থেকে একটা বেশি ছেলে আমায় দেখবে।’

মাইয়‍্যা তখন মন দিয়ে মায়ের জন্মদিনের কেকের উপরে মোমবাতি জ্বালাতে ব‍্যস্ত‌। শ্রীলেখা যোগ করেন, ‘আগে বলা হত মেয়েরা কুড়িতেই বুড়ি। আমরা বয়সের বাধাটাকে অনেক দূরে সরিয়ে দিয়েছে। বয়স শুধু একটা সংখ‍্যা। এটা শুধু আমাদের মনে রয়েছে। হাড়ের চিকিৎসকরাও এটাই বলেন। আমার এখন কোমরে ব‍্যথা হয়েছে।’