আরে নাহ, তাদের দলে অনেক হার্ডহিটার আছে, বলে বলে ছয় আর ছয়: মুশফিকের স্ত্রী

এবার বাংলাদেশের বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বাদ পড়া নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তার স্ত্রী জান্নাতুল কাওসার মিষ্টি।

এবার বোনের সঙ্গে মিলে বিসিবিকে এক হাত নিলেন মুশফিকুর রহিমের স্ত্রী জান্নাতুল কিফায়াত মন্ডি। এদিকে মাহমুদউল্লাহ এবং মুশফিকুর রহিম দুজনে ভায়রা ভাই।

২০১১ সালে রিয়াদ বিয়ে করেন জান্নাত কাওসার মিষ্টিকে। এর তিন বছর পর মিষ্টির বোন জান্নাতুল কিফায়েত মন্ডিকে বিয়ে করেন মুশফিকুর রহিম।

এদিকে মাহমুদউল্লাহর বাদ পড়া প্রসঙ্গে বুধবার ১৪ সেপ্টেম্বর সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে তার স্ত্রী মিষ্টি একটি পোস্ট করেছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘এই দেশে যোগ্য লোকের যোগ্যতার মূল‍্যায়ন হয় না, হবেও না’!

এদিকে, বড় বোনের পোস্টের কমেন্টবক্সে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন ছোট বোন মন্ডি। তিনি লিখেছেন, ‘আরে নাহ, তাদের দলে (বাংলাদেশ টিম) অনেক হার্ডহিটার আছে।

বলে বলে ছয় আর ছয়।’আজ দল ঘোষণার পর টি-টোয়েন্টির সাবেক অধিনায়ক রিয়াদের বাদ পড়ার কারণ ব্যাখ্যা করেন নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু।

তিনি জানান, ম্যানেজমেন্টের সর্বসম্মতিক্রমেই বাদ দেয়া হয়েছে তাকে। মূলত টি-টোয়েন্টি দলের দায়িত্বে থাকা টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট শ্রীরাম শ্রীধরনের দেয়া পরিকল্পনায় খাপ না খাওয়াতেই বাদ পড়েছেন এই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার।

এ বিষয়ে নান্নু বলেন, ‘মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে আমরা সম্মান করি। আমাদের জাতীয় দলের হয়ে অনেক ভালো ভালো খেলা উপহার দিয়েছেন। এবার আমাদের টি-টোয়েন্টির যে কনসালটেন্ট,

ওর একটা প্ল্যান আমাদের দিয়েছে এবং আগামী এক বছরের জন্য যে প্ল্যানটা নিয়ে আমরা এগোচ্ছি, এটার জন্য একটা আলাদা ডিরেকশন। ওই প্ল্যানের সঙ্গেই আমরা গিয়েছি।

টিম ম্যানেজমেন্টের সবার সম্মতিক্রমে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে অফ করা হয়েছে।’দল ঘোষণার আগে টক অব দ্য কান্ট্রিতে পরিণত হয়েছিলেন রিয়াদ। তার দলে থাকা না থাকা নিয়ে শোনা যাচ্ছিল নানান গুঞ্জন। শোনা যাচ্ছিল, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন থেকে শুরু করে নির্বাচকরা পর্যন্ত বিশ্বকাপের দলে রিয়াদকে রাখার পক্ষপাতী ছিলেন না।

তবে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান নাকি দলে চাচ্ছিলেন এই অভিজ্ঞ তারকাকে।নান্নু জানান, রিয়াদকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত এসেছে সর্বসম্মতিক্রমে। অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত। জাতীয় দলের নির্বাচক নান্নু বলেন, ‘সবার সঙ্গে পরামর্শ করেই সিদ্ধন্ত নেয়া হয়েছে। কেননা এশিয়া কাপ থেকেই তো সাকিব আল হাসান ক্যাপ্টেন। এটা তো আমাদের মধ্যেই আছে। টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে, সবার সম্মতিক্রমেই এই সিদ্ধান্তটা নেয়া হয়েছে।’