শ্রীলঙ্কায় এশিয়া কাপ আয়োজন শঙ্কায়, সিদ্ধান্ত কিছুদিনের মধ্যে

পৃথিবীতে জনপ্রিয় খেলাগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি ক্রিকেট। আর সেই ক্রিকেট সমর্থকদের প্রাণকেন্দ্র এশিয়া। এশিয়ার দেশগুলোকে নিয়ে প্রতি ২ বছর পর পর এশিয়া কাপ আয়োজন করে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)।

তবে করোনার কারণে ২০২০ সালে সম্ভব হয়নি কোন এশিয়া কাপ আয়োজনের। এর ২ বছর পর এবারের এশিয়া কাপের আসর বসার কথা ছিল শ্রীলঙ্কায়।

তবে শ্রীলঙ্কার বর্তমান সংকটপন্ন পরিস্থিতিতে শঙ্কা জাগাচ্ছে দেশটিতে এশিয়া কাপ আয়োজন।গত ১৯ মার্চ এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি) জানিয়েছিল, এবারের এশিয়া কাপ অনুষ্ঠিত হবে শ্রীলঙ্কায়।

তবে দেশটি সাম্প্রতিক সময়ে অর্থনৈতিক সংকটে বেশ অস্থিতিশীল হয়ে পড়েছে। বেড়েছে দ্রব্যমূল্যের দাম। বিদ্যুৎ ও জ্বালানীর অভাবে অধিকাংশ সময় অন্ধকারে থাকছে লঙ্কাবাসী।

কাগজের অভাবে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষাও নিতে পারছে না দেশটি।এমন পরিস্থিতিতে দেশটিতে এশিয়া কাপ আয়োজন প্রায় দুরূহ ব্যাপার শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড (এলএসসি) এর জন্য।

ইতিমধ্যে আর্থিক সংকটের কারণে বাংলাদেশ এইচপি দল শ্রীলঙ্কা সফর করার কথা থাকলেও সেই সিরিজও স্থগিত করেছে শ্রীলঙ্কা। আর এশিয়া কাপ আয়োজন যেন এখন স্বপ্নের মত শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি) এর কাছে।

শ্রীলঙ্কায় এশিয়া কাপ আয়োজন সম্ভব হবে কিনা সে সিদ্ধান্ত জানাতে এখনও কয়েকদিন সময় চেয়েছে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এনসিসি)।

এশিয়া কাপের এবারের আসর শুরু হবে ২৭ আগস্ট। এবং টুর্নামেন্টের পর্দা নামবে ১১ সেপ্টেম্বর। সে হিসেবে টুর্নামেন্টটি শুরু হতে আরো ৪ মাসের বেশি সময় বাকি আছে।

যদিও শ্রীলঙ্কা এশিয়া কাপ আয়োজনে সমর্থ না হলে বিকল্প ভেন্যু বেছে নিবে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)।টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে এবার টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এশিয়া কাপ অনুষ্ঠিত হবে।

যদিও টুর্নামেন্টটি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল পাকিস্তানে ২০২০ সালে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে তা আর হয়ে উঠেনি।উল্লেখ্য, এবারের এশিয়া কাপে পাঁচ টেস্ট খেলুড়ে দল ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান ছাড়াও বাছাই পর্ব পেরিয়ে আসা একটি সহযোগী সদস্য দল অংশ নেবে।