দক্ষিণ আফ্রিকার রানপাহাড়ের জবাবে দ্বিতীয় দিন শেষে দেখেনিন বাংলাদেশের স্কোর

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ দল। ম্যাচের প্রথম ইনিংসে দ্বিতীয় দিন শেষে ব্যাকফুটে রয়েছে বাংলাদেশ দল।

প্রথম দিনে ৫ উইকেট হারিয়ে ২৭৮ রান করা দক্ষিণ আফ্রিকা দ্বিতীয় দিনে এসেও দেখেশুনে ব্যাট চালাতে থাকে। কাইল ভেরেইন্নেকে দিনের প্রথম শিকারে পরিণত করে খালেদ আহমেদ সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে দিলেও কেশব মহারাজ ক্রিজে এসে ব্যাট চালাতে থাকেন ওয়ানডে মেজাজে।

দিনের দ্বিতীয় সাফল্য তাইজুল ইসলামের হাত ধরে আসে ৩৩ রান করা মুল্ডারকে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে দিলে। শেষ পর্যন্ত মহারাজের ৯৫ বলে ৮৪ রানের সাথে সাইমন হারমারের ২৯ রানে ভর করে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম ইনিংসে অলআউট হয় ৪৫৩ রানে।

বল হাতে প্রথম ইনিংসে ৬ উইকেট তুলে নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। ৫০ ওভার বল করে ১৩৫ রান খরচ করেন তাইজুল। এছাড়া খালেদ আহমেদ ৩টি এবং মেহেদি হাসান মিরাজ নেন ১টি করে উইকেট।

জবাবে খেলতে নামা বাংলাদেশ শুটা সুবিধাজনক করতে পারেনি প্রথম ইনিংসে। দলীয় ৩ রানের মাথায় সাজঘরের পথ ধরেন ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়। ২ বল মোকাবেলা করলেও রানের খাতা খলার আগেই অলিভারের শিকারে পরিণত হন জয়।

জয় সাজঘরে ফিরে গেলেও ওয়ানডে মেজাজে ব্যাট চালিয়ে যান তামিম ইকবাল। নাজমুল হোসেন শান্তকে নিয়ে ৭৯ রানের জুটি গড়লে এই জুটি বিচ্ছিন্ন হয় ৫৭ বলে ৮টি চারের সাহায্যে ৪৭ রান করে তামিম ইকবাল মুল্ডারের বলে এলবিআডব্লিয়ের শিকার হলে।

তামিমের বিদায়ের পর স্কোরবোর্ডে আর মাত্র ৩ রান যোগ করার পর দলীয় ৮৫ রানে ফিরে যান শান্তও। তার ব্যাট থেকে আসে ৩৩ রানের ইনিংস। ব্যাট হাতে ব্যর্থ ছিলেন লিটন দাস এবং অধিনায়ক মুমিনুল হক দুজনেই। তবে দিনের বাকি সময়টা পার করেন মুশফিকুর রহিম এবং ইয়াসির আলি রাব্বি।

দ্বিতীয় দিন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেট হারিয়ে ১৩৯ রান। মুশফিক অপরাজিত আছেন ৩০ রান নিয়ে এবং রাব্বি অপরাজিত আছেন ৮ রান নিয়ে।