মাশরাফিকে বিদায়ী ম্যাচ খেলার সুযোগ দিতে আপত্তি নেই নির্বাচকদের শেয়ার

২০২০ সালে জিম্বাবুয়ে সিরিজের শেষ ম্যাচের প্রাক্বালে হুট করে মাশরাফি বিন মুর্তজা ঘোষণা দেন, বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক হিসেবে এটাই তার শেষ ম্যাচ।

অবশ্য মাশরাফি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে এখনও অবসর নেননি। তবে সেই ম্যাচের পর আর জাতীয় দলে খেলা হয়নি। নির্বাচকরাও বিবেচনায় নেননি মাশরাফিকে,

মাশরাফি নিজেও তেমন ইচ্ছা প্রকাশ করেননি।ফলে মাঠ থেকে আর বিদায় নেওয়া হয়নি মাশরাফির। বিপিএলে সিলেট স্ট্রাইকার্সের অধিনায়ক বল হাতে আছেন দারুণ ছন্দে।

৩৯ বছর বয়সে জাতীয় দলে ফেরার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তবে বোর্ড রাজি থাকলে মাশরাফিকে জাতীয় দলের জার্সিতে বিদায়ী ম্যাচ খেলতে দিতে আপত্তি নেই নির্বাচক প্যানেলের।

বিপিএলের ফাঁকে দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ও আব্দুর রাজ্জাককে প্রশ্ন করা হয়েছিল মাশরাফির বিপিএলের পারফরম্যান্স নিয়ে।

এ সময় জানতে চাওয়া হয়, মাশরাফিকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে আনুষ্ঠানিক বিদায়ের জন্য কোনো ম্যাচে খেলানোর সুযোগ দেওয়ার ভাবনা আছে কি না।

প্রধান নির্বাচক নান্নু আরেক নির্বাচক রাজ্জাকের কোর্টে বল ঠেলে দিলে রাজ্জাক বলেন, ‘এটা সম্পূর্ণ বোর্ডের সিদ্ধান্ত। এসব স্পেশাল ডিসিশন।

যদি বোর্ড এই সিদ্ধান্ত নেয়, আমাদের কোনো আপত্তি নেই এই ব্যাপারে। আমরা চাই খেলোয়াড়রা মাঠ থেকে যেন বিদায় নেয়। দেখতেও ভালো লাগবে, মানুষও খুশি হবে।

এটা পুরোপুরি বোর্ডের সিদ্ধান্ত। বোর্ড এই সিদ্ধান্ত নিলে আমরা সম্মান করব। শুধু মাশরাফির ক্ষেত্রে নয়, সবাই। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যারা অনেক দিন ধরে খেলেছে, সবার ক্ষেত্রে এমন হলেই ভালো। খেলোয়াড়েরও একটা স্মৃতি থাকবে। মাঠ থেকে বিদায় নিলে খারাপ হয় না।’প্রধান নির্বাচক নান্নু জানালেন,

অন্য সব ক্রিকেটারের মতো মাশরাফির বিপিএলের পারফরম্যান্সের ওপরও চোখ রাখছে জাতীয় দলের নির্বাচক প্যানেল। তিনি বলেন, ‘ঘরোয়া ক্রিকেটে যারা খেলে সবাইকেই কিন্তু বিবেচনায় রাখা হয়। কাউকে চোখের আড়াল করা হবে না। যাকে যখন দরকার হবে তাকে নিয়ে চিন্তাভাবনা করা হবে।’

নিয়মিত খেলার মধ্যে না থাকলেও মাশরাফির হাড়ে যেন এতটুকু মরচে ধরেনি। এখন পর্যন্ত বিপিএলের ৯ম আসরে দেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি তিনি। মাশরাফির এমন পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করতে গিয়ে নান্নু বলেন, ‘লিজেন্ড ক্রিকেটার তো সবসময় লিজেন্ডের মতোই চলে।

তরুণদের জন্য মাশরাফির কাছ থেকে শেখার আছে। কীভাবে এই বয়সে পারফর্ম করতে হয়, নিজের ফিটনেস ধরে রাখতে হয়। অনেক কিছুই শেখার আছে। তরুণদের জন্য প্রেরণাদায়ক।’