শেষ ওভারে ৬ রানে ম্যাচ হারল দিল্লী যে কারণকে দুষলেন পান্ত

হেরে বসেছে মুস্তাফিজুর রহমানের দল দিল্লী ক্যাপিটালস। লক্ষ্ণৌ সুপার জায়ান্টসের দেয়া রানপাহাড় টপকাতে না পেরে শেষ মুহূর্তে হারের মুখ দেখতে হয়েছে দিল্লিকে।

এদিন প্রথম ইনিংসে ব্যাটিং করতে নামা লক্ষ্ণৌ সুপার জায়ান্টস অধিনায়ক লোকেশ রাহুল এবং দিপক হুদার বড় স্কোরের পর বিশাল পুঁজি পায়।

৫১ বল মোকাবেলায় ৬টি চার ও ১টি ছকার সাহায্যে ৭৭ রানের ইনিংস খেলেন রাহুল। দিপক হুদা খেলেন ৩৪ বলে ৫২ রানের ইনিংস।

নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৯৫ রানের সংগ্রহ পায় লক্ষ্ণৌ। বল হাতে দিল্লীর হয়ে এদিন ৪ ওভারে ৩৭ রান খরচ করলেও কোনো উইকেটের দেখা পাননি মুস্তাফিজ।

১৯৬ রানের পাহাড়সম লক্ষ্যে খেলতে নেমে দিল্লী ক্যাপিটালস শুরুটা ভালো করতে পারেনি। দলীয় মাত্র ১৩ রানের মাথায় দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার এবং পৃথ্বী শ’কে হারায় দিল্লী।

মিচেল মার্শ ও রিশাব পান্ত মিলে দলকে এগিয়ে নিতে থাকলে তা স্থায়ী হয়নি লম্বা সময়।২০ বলে ৩৭ রানের ইনিংস খেলে মার্শ বিদায় নিলে ৩০ বলে ৪৪ রান আসে পান্তের ব্যাট থেকে।

শেষের দিকে রভম্যান পাওয়েল ২১ বলে ৩৫ রানের ইনিংস খেলে দলকে এগিয়ে নেয়ার চেস্টা করেন। তবে তার সাজঘরে ফিরে যাবার পর অক্ষর প্যাটেল ব্যাট হাতে লড়াই করেন।

শেষ ওভারে দিল্লীর জয়ের জন্য ২১ রান প্রয়োজন হলে ৬ রানে ম্যাচ হারে দিল্লী। অক্ষর প্যাটেল ২৪ বলে ৪২ রান করে অপরাজিত ছিলেন।

কাছে এসে এমন ম্যাচ হারের পর দিল্লীর অধিনায়ক রিশাব পান্ত বলেন, ‘’ম্যাচ হারাটা সবসময়ই কষ্টের। এত কাছাকাছি থেকে আমাদের ম্যাচ জিততে হবে।

কয়েকটি ম্যাচ খুব কাছে গিয়ে হেরেছি আমরা। বোলাররা ম্যাচে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এই ধরণের উইকেটে বোলাররাও যখন এগিয়ে আসে তখন ব্যাটিং ইউনিটকেও ভালো করতে হবে।

মার্শ যেভাবে ব্যাটিং করেছে সত্যিই ভালো লেগেছে। কিন্তু ব্যাটিং ইউনিটে তা ৩০-৪০ এ রূপান্তর করতে হবে। আমরা আশা করি এটা ঘুরিয়ে দিতে পারব। আমরা দল হিসেবে আরও ইতিবাচক হতে হবে। পরের ম্যাচে আমাদের আরও ভালো করতে হবে।‘’