রাজার মত সবার উপরে থেকে ‘বিশ্বকাপ নিশ্চিত’ করলো বাংলাদেশ

এমনিতেই বিশ্বকাপ সুপার লিগে শীর্ষস্থানে অবস্থান বাংলাদেশের। সেই জায়গাটাকে আরও শক্ত করলো টাইগাররা।

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ইতিহাসগড়া সিরিজজয়ে ‘অপ্রত্যাশিত’ ২০ পয়েন্ট জোগাড় করে নিলো তামিম ইকবালের দল।এখন ১৮ ম্যাচে ১২ জয়ে ১২০ পয়েন্ট বাংলাদেশের নামের পাশে।

সুপার লিগে এখনও পর্যন্ত ১০০’র বেশি পয়েন্ট কেবল বাংলাদেশেরই। কারণ ১৫ ম্যাচে ৯ জয়ে ৯৫ পয়েন্ট নিয়ে বিশ্বকাপ সুপার লিগে দুই নম্বরে আছে ইংল্যান্ড।

ঘরের মাঠে গত মাসে আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ শেষে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল বলেছিলেন, সেরা চারে থেকেই বিশ্বকাপে যেতে চান তিনি।

১২০ পয়েন্টকেই বিশ্বকাপ খেলার জন্য যথেষ্ঠ মনে করা হচ্ছে। কিন্তু তামিমের লক্ষ্য আরও বেশি ম্যাচ জয়। বাংলাদেশের জন্য বিশ্বকাপ সুপার লিগের শেষ তিনটি সিরিজ বিদেশের মাটিতে।

দক্ষিণ আফ্রিকায় তিনটি ম্যাচ হয়ে গেছে। এরপর দুটি সিরিজ আছে ইংল্যান্ড এবং আয়ারল্যান্ডের মাটিতে। দক্ষিণ আফ্রিকায় ২টি ম্যাচ জয়ের কারণে এমনিতেই অনেক এগিয়ে থাকবে বাংলাদেশ।

পরের দুই সিরিজে তাই বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জনের চিন্তা দূরে সরিয়ে রেখে নির্ভার হয়েই খেলতে নামতে পারবে টাইগাররা। আফগানদের বিপক্ষে সিরিজের পর তামিমের কণ্ঠে তাই উদ্বেগ ঝরে পড়েছিল।

তিনি জানিয়েছিলেন, যত বেশি সম্ভব ম্যাচ জিতে এগিয়ে থাকতে চাই। সে লক্ষ্যে তো ২টি ম্যাচ এরই মধ্যে জিতে ফেলেছেন প্রোটিয়াদের বিপক্ষে।

সুপার লিগের নিয়ম অনুযায়ী, ২০২৩ বিশ্বকাপে স্বাগতিক ভারত তো সুযোগ পাবেই, তার সঙ্গে সেরা সাত দল (মোট ৮টি) সরাসরি যাবে বিশ্বকাপে।

১৩ দলের বাকি পাঁচ দল আনুষ্ঠানিক বাছাইপর্ব খেলবে নিচের স্তরের বাছাইপর্ব পেরিয়ে আসা আরও পাঁচ দলের সঙ্গে, ১০ দলের সেই বাছাইপর্ব থেকে ২ দল সুযোগ পাবে বিশ্বকাপে।

১৩ দলের সুপার লিগে প্রতিটি দল ২৪টি করে ম্যাচ খেলবে। বাংলাদেশ খেলে ফেলেছে ১৮টি ম্যাচ, এখন পর্যন্ত শীর্ষেই আছে টাইগাররা। তাতে মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে গেছে বাকি ছয় ম্যাচ হারলেও সেরা আটের মধ্যে অন্তত থাকতে পারবে বাংলাদেশ।সেক্ষেত্রে বিশ্বকাপে সরাসরি অংশগ্রহণও বলতে গেলে নিশ্চিত। বাকি রইলো শুধু আনুষ্ঠানিকতা আর কিছু হিসেব-নিকেশ।